আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সাতদিন ধরে ঘুমাতে পারেননি বেন স্টোকস 

নিউজ ডেস্কঃ

মানসিকভাবে পেরেশানিতে রয়েছেন ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম বড় তারকা বেন স্টোকস। বেন স্টোকসের বাবা জেড স্টোকস দীর্ঘদিন ধরেই ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত। সম্প্রতি অবস্থার অবনতি হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি আছেন জেড স্টোকস। বাবা ও পরিবারের সাথে থাকতেই পাকিস্তানের সাথে চলমান টেস্ট সিরিজ না খেলেই পারি জমান নিউজিল্যান্ডে। কিন্তু করোনা ভাইরাসজনিত সতর্কতা রক্ষায় থাকতে হচ্ছে আইসোলেশনে।
দেশের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলছে ইংল্যান্ড। তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ খেলেছেন বেন স্টোকস। তবে সিরিজের প্রথম টেস্টে তেমন ভালো পারফর্ম করতে পারেননি তিনি।কারণ হিসেবে জানা যায় তার বাবা জেড স্টোকস ব্রেন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাবার কথা চিন্তা করে মাঠের খেলায় মনোযোগ দিতে পারছিলেন না স্টোকস।
ফলে তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচ খেলার পরই হঠাৎ করে জাতীয় দল ত্যাগ করেন ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার ও সহঅধিনায়ক বেন স্টোকস। তিনি বলেন, ‘আমি প্রায় এক সপ্তাহ ঘুমাতে পারিনি। আমার মন খেলায় ছিল না। মানসিকভাবে এর জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। তাই আমার অবস্থান থেকে দল ছেড়ে যাওয়াই সঠিক সিদ্ধান্ত ছিল।’
স্টোকসের বাবা নিউজিল্যান্ডের একজন সাবেক রাগবি খেলোয়াড়। স্টোকসের বাবার বর্তমান বয়স ৬৪ বছর। তিনি ব্রেন ক্যানসারে আক্রান্ত। স্টোকস বলেন আমার ক্যারিয়ারে বাবার অবদান অনেক, ‘বাবা মানসিকভাবে ভীষণ শক্ত। তবে তা বড় হয়ে বুঝতে পেরেছি। তিনি জানতেন, আমি পেশাদার ক্রীড়াবিদ হতে চাই। এ কারণে আমার মাথায় ক্রিকেট নিয়ে ভাবনাটা তিনিই ঢুকিয়ে দিয়েছেন।’
ফেসবুক পরিচালনাগত ভুল করেছে: মার্ক জাকারবার্গ
নীতিমালার লঙ্ঘন সত্ত্বেও ফেসবুক থেকে ‘কেনোসা গার্ড’ নামের একটি সশস্ত্র সংগঠনের পেজ সরানোয় ব্যর্থতা মূলত পরিচালনাগত ভুল ছিল বলে স্বীকার করেছেন ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ। ওই পেজ বা ইভেন্ট নিয়ে অনেক অভিযোগ আসার পরও তা সরানো হয়নি। পেজটি সহিংসতার আগেই বন্ধ করে দেওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি।
ওই ঘটনায় ফেসবুকের ব্যর্থতার দায় নিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেন মার্ক জাকারবার্গ। ভিডিওতে তিনি ফেসবুকের ভুল স্বীকার করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের কেনোসা শহরে বিক্ষোভের সময় গুলিতে দুজন মারা যাওয়ার আগেই এ ধরনের সশস্ত্র গ্রুপের পেজ বন্ধ করে না দেওয়াটা বিশাল পরিচালনাগত ভুল বলেছেন, জাকারবার্গ।
উল্লেখ্য গত মঙ্গলবার কেনোসায় গুলির ঘটনায় হত্যাকাণ্ডের একদিন পর বুধবার ওই পেজ সরিয়ে নেওয়া হয়।
ফেসবুক পেজে অভিযোগ আসার পরও ব্যবস্থা না নেওয়া প্রসঙ্গে জাকারবার্গ বলেছেন, ‘পর্যালোচনাকারীরা প্রাথমিক অভিযোগ খতিয়ে দেখেননি। দ্বিতীয় পর্যালোচনায় এটি স্পর্শকাতর বিবেচনা করে কেনোসা গার্ডকে বিপজ্জনক সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এটি আমাদের নীতিমালার পরিপন্থী হওয়ায় তা সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।’
‘কেনোসা গার্ড’ নামের ফেসবুক পেজ ও ইভেন্ট খোলা নীতিমালার লঙ্ঘন। কারণ, গ্রুপটির সহিংস ধরন নিয়ে অনেক অভিযোগ এসেছিল। ভয়েস অব আমেরিকার এক খবরে বলা হয়, জ্যাকব ব্লেক নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফেসবুকের ওই পেজে সশস্ত্র লোকজনকে কেনোসাতে আসতে বলা হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সশস্ত্র এক যুবকের বিরুদ্ধে গুলি করে দুজনকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।
ফলে ফেসবুকের পক্ষ থেকে কেনোসা গার্ড ফেসবুক পেজ ও ‘আর্মড সিটিজেনস টু প্রটেক্ট আওয়ার লাইভস অ্যান্ড প্রপার্টি’ ইভেন্টটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap