আজ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অনুমতি পেয়ে জেলার বাহিরে ছুটছে কুড়িগ্রামের ধান কাটা শ্রমিকরা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামে লকডাউনের মধ্যেও কাজের সুযোগ পাওয়ায় খুশি কৃষি শ্রমিকরা। প্রশাসনের ক্লিয়ারেন্সের মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে এসব শ্রমকিকে পাঠানো হচ্ছে। বর্তমানে কর্মহীন মানুষগুলো জেলার বাইরে গিয়ে কাজের মাধ্যমে পরিবারে দুমুঠো খাবার তুলে দিতে পারবে একারণে খুশি তারা।

চলতি বছর বিরুপ আবহাওয়ার মধ্যেও মাঠে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। করোনা বিস্তারের কারণে দেশে লকডাউন ঘোষণা করায় বিপাকে ছিল কৃষি জমির মালিকরা। তবে সরকারের সহযোগিতার মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিম্নআয়ের শ্রমিকরা জেলার বাইরে গিয়ে পাচ্ছে কাজের সুযোগ।

 

অপরদিকে জমির মালিকদের মধ্যে নেমে এসেছে স্বস্থি। জেলা প্রশাসন কাজে যেতে ইচ্ছুক এমন শ্রমিকদের তালিকা করতে উপজেলা পর্যায়ে ইউএনও, অফিসার ইনচার্জ ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সমন্বয়ে টিম গঠন করে আইডি কার্ড ও ছাড়পত্রের মাধ্যমে এসব শ্রমিকদের বাইরে পাঠাচ্ছে। এরফলে দারিদ্রপীড়িত ও কর্মহীন কুড়িগ্রাম জেলার কৃষি শ্রমিকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে কাজের সুযোগ। ফলে ভীষণ খুশি তারা।

জেলায় ৩ থেকে ৪ শ’ টাকা মজুরী দিয়ে বড় সংসার প্রতিপালন করতে হিমসীম অবস্থা হয় তাদের। মাঝেমধ্যে কাজও থাকে না। অপরদিকে বাইরের জেলায় গিয়ে শ্রম দিয়ে তারা গড়ে ৬ থেকে ৭শ’ টাকা আয় করতে পারে। ফলে দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলে ছুটছে এসব শ্রমিক।

লকডাউন থাকায় বাস মালিকসহ শ্রমিকরা ক্ষতির মুখে পড়েছেন। সরকারের পক্ষ থেকে বোরো ধান কাটতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে শ্রমিক পাঠানোর ব্যবস্থায় খুশি বাস মালিকরাও। লকডাউন শিথিল করে এই অঞ্চলের মানুষের জীবন-মান স্বাভাবিক করতে সরকারের প্রতি দাবী বাস মালিকদের।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ধান কাটার জন্য কৃষি শ্রমিক পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কুড়িগ্রামের শ্রমিকের বেশি চাহিদা থাকায় জেলার ৯টি উপজেলা থেকে পরীক্ষা-নিরিক্ষা করে ২২এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় ৬শতাধিক কৃষি শ্রমিক পাঠানো হয়েছে। লকডাউন চলাকালিন বিধি মোতাবেক শ্রমিক পাঠানো অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

 

 

 

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap