আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কুড়িগ্রামে আমন বীজের ঘাটতি কমাতে ভাসমান-প্লেট ও কমিউনিটি পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরী

কুড়িগ্রাম থেকে-

কুড়িগ্রামে পরপর তিন দফা বন্যায় ব্যাপক ক্ষতি হয় আমন বীজতলার। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর জমি কর্ষন, বীজ সংগ্রহ ও বপনে বাড়তি অর্থ ব্যয়ে যখন কৃষক দিশেহারা তখন ঘাটতি কমাতে সরকারি উদ্যোগে ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিউনিটি বীজতলা, ভাসমান বীজতলা ও বাড়ির ভিতর প্লেট পদ্ধতিতে বীজতলা কৃষকের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। সরকারি প্রণোদনায় এসব বীজ বিনামূল্যে পেয়ে নতুন উদ্যোমে মাঠে
নেমেছে কৃষকরা।


চলতি বছর দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় কুড়িগ্রামে ১৭ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনস্ট হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার কৃষক। সরকারিভাবে কৃষিতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪০ কোটি টাকা।
এরমধ্যে ২৫হাজার ৮১০জন কৃষকের আমন বীজতলার ক্ষতি হয়েছে ১ হাজার ৪০৯ হেক্টর জমিতে। আমন বীজতলার ঘাটতি মোকাবেলায় সরকারিভাবে ১০৫টি কমিউনিটি বীজতলা, ১১২টি ট্রে বীজতলা এবং শতাধিক ভাসমান বীজতলা তৈরী করেছে। যার মাধ্যমে ২১ হাজার কৃষক বিনামূল্যে ২০ হাজার ৯২২ বিঘা জমিতে আমন চাষ করার সুযোগ পাচ্ছে।

জেলায় এবার আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লক্ষ ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে। এখন পর্যন্ত অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ৯৪ হাজার ৫৩৫ হেক্টর। আমন বীজতলার লক্ষ্যমাত্রা ৬ হাজার ৩ হেক্টর হলেও বিভিন্ন প্রণোদনা দিয়ে আমন বীজতলা তৈরী করায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে ৭ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে। বন্যার ক্ষতি থেকে রক্ষা পেতে কৃষক বাড়ির উঠোনে উঁচু জায়গায় প্লেট পদ্ধতিতে আমনের চারা লাগানোর অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পেরে খুশি। এছাড়াও সেলফ বা তাক পদ্ধতির মাধ্যমেও কৃষক আমনের বীজতলার ক্ষতি থেকে রক্ষা পেতে পারে।

ড. মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান, উপ-পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর,কুড়িগ্রাম জানান, আমন আবাদ যাতে বিঘ্নিত না হয় এজন্য বন্যা পরবর্তী কৃষি পূনর্বাসন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে।
চলতি বছর জেলায় আমন চারার ঘাটতি মোকাবেলায় ১০৫টি কমিউনিটি বীজতলা, ১১২টি ট্রে বীজতলা এবং শতাধিক ভাসমান বীজতলা এবং তৈরী করা হয়েছে। যা বিনামূল্যে কৃষকের মাঝে বিতরণ
করা হচ্ছে।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap