আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কালিয়াকৈরে ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের অভিযোগ

ফজলুল হক, কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে এক ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরকরার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই চেয়ারম্যান ও ব্যবসায়ী দুজনই আহত
হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার সাহেববাজর এলাকায় রোববার সকালে। এঘটনায় ওই এলাকায় নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে।
আহতরা হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার শ্রীফলতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরফিকুল ইসলাম ও উপজেলার ভাঙ্গুড়ি এলাকার আবু সাইদের ছেলে টাইলস ব্যবসায়ী
আসলাম হোসেন।
এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীদের সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি কালিয়াকৈর উপজেলারশ্রীফলতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামকে জড়িয়ে এক নারীকে
নিয়ে নানা গুজব রটিয়েছেন স্থানীয় টাইলস ব্যবসায়ী আসলাম হোসেন। স্থানীয়শ্রমিক নেতা সাইজুদ্দিন কৌশলে ওই টাইলস ব্যবসায়ী আসলামকে দিয়ে নারী
সংক্রান্ত এমন নানা গুজব ছড়িয়ে চেয়ারম্যানের ইমেজ নষ্ট করে। এমন কি তারা এসববিষয়গুলো কৌশলে ওই চেয়ারম্যানের স্ত্রীকেও অবগত জানায়। এ নিয়ে কিছুদিন
ধরে ওই চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রীর মধ্যে পরিবারিক দ্বন্দ্ব চলে আসছে। তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দ্বন্দ্ব বাজিয়েই ক্ষান্ত হননি শ্রমিক নেতা সাইজুদ্দিন ও আসলাম। তারা
এলাকায় গুজব রটিয়েছে, চেয়ারম্যানের স্ত্রী গিয়ে ওই নারীকেও মারধার করেছে।এতে চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হন। সর্বশেষ রোববার সকালে তিনি সাহেববাজার এলাকায়
বাজার করতে যান। সেখানে সাইজুদ্দিন মোবাইলে চেয়ারম্যান ও ওই নারীর ছবি দেখিয়ে বলেন, ব্যবসায়ী আসলাম তাকে এসব ছবি দিয়েছে। বিষয়টি
চেয়ারম্যান এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টার করলেও সাইজুদ্দিন বার বার তাকে ছবি দেখিয়ে
নানা কথা বলেন। এরই মধ্যে সেই টাইলস ব্যবসায়ী আসলাম ওই বাজারে গেলেচেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে আঁখ দিয়ে তাকে আঘাত করতে থাকে। এসময় ওই ব্যবসায়ীও
চেয়ারম্যানকে এলোপাথারি কিলঘুষি মারতে থাকে। এতে চেয়ারম্যান রফিকুল
ইসলাম ও ব্যবসায়ী আসলাম হোসেন দুজনই আহত হন। বিষয়টি দেখতে পেয়ে ওই
বাজারের লোকজন তাদের বুঝিয়ে শান্ত করলে তারা চলে যান। এ ঘটনায় স্থানীয়জনমনে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে।
ওই ব্যবসায়ী আসলাম হোসেন জানান, যে নারী নিয়ে ঘটনা সে নারীর পাশেরপ্লটে আমি ভাড়া উঠার পর থেকেই চেয়ারম্যান আমার উপর ক্ষিপ্ত। কিন্তু বাজারের
যাওয়ার সাথে সাথেই আঁখের খন্ড দিয়ে চেয়ারম্যান আমাকে বারি মারতে থাকে।এ সময় আমিও পাল্টা মারধর করি। তবে শ্রমিক নেতা সাইজুদ্দিন জানান, আমি
কোনো ছবি দেখাই নাই। ছবির বিষয়ে কোনো কিছু জানি না। তবে
চেয়ারম্যানের সাথে দেখা হওয়া মাত্র তিনি ব্যবসায়ী আসলামকে মারধর করেছে।
ওই চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, সাইজুদ্দিন টাইলস ব্যবসায়ী আসলামকেদিয়ে বিভিন্ন মহলে ওই নারীর সঙ্গে আমার জোড়া ছবি দেখিয়ে আমার ইমেজ নষ্ট
করেছে। কিন্তু তার সঙ্গে আমার জোড়া ছবি দেখানো পর আমার স্ত্রীর সঙ্গেও দ্বন্দ্ব
চলছে। এ রাগে আমি আসলামকে মেরেছি। এসময় সাইজুদ্দিনের উসকানিতেআসলাম উল্টো আমার উপর হামলা চালায় এবং আমাকে মারধর করে। তবে ওই নারী
সম্পর্কে আমার ভাগনি হয়। তার সঙ্গে আমার কোনো অবৈধ সম্পর্ক নেই।

এব্যাপারে কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, ওই ঘটনাটি জানা নেই। তবে এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ পেলে
প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap