আজ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বইমেলা পরবর্তী অনুষ্ঠানে কবিসাহিত্যিকদের আগমনে মুখরিত বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র

মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু

সাহিত্য মানুষকে আনন্দ দেয়, শিক্ষা দেয়। কবিরা মানুষের অধিকারের কথা তাদের লেখনীতে তুলে ধরেন। তাই তো কবিতা মানুষকে বেঁচে থাকতে সাহায্য করে।জাতীয় কবিতা মঞ্চ ও নব সাহিত্য প্রকাশনীর যৌথ উদ্যোগে “সাহিত্য পদক ও গুণীজন সম্মাননা-২০২৩” শেষ হলো।

গত ০৯/০৩/২৩ ইং বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কবি সাহিত্যিকদের ব্যাপক আগমন ঘটে এবং জমকালো আয়োজনের মধ্যদিয়ে উক্ত অনুষ্ঠান শুরু ও শেষ হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা পদক, একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পদকপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক এবং বাংলা একাডেমির সভাপতি ড সেলিনা হোসেন।

উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রীয় পদকপ্রাপ্ত প্রথিতযশা কথাসাহিত্যিক কবি নির্মলেন্দু গুণ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের যুগ্ম মহাসচিব শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ পাটওয়ারী, বাংলা একাডেমি পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট ছড়াকার আসলাম সানী এবং জাতীয় চলচিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত কবি, গীতিকার ও চলচিত্র নির্মাতা ড. মাসুদ পথিক।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম তারেক খান এবং মহিলা মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ডের আহবায়ক, মালেকা ফার্নিচার এবং প্রাফট প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানির চেয়ারম্যান কবি ও ছড়াকার মালেকা পারভীন রশীদ এবং লেখক ও গবেষক মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু ছাড়াও আরও অনেক জ্ঞানীগুণী কবি সাহিত্যিক উপস্থিত ছিলেন।

প্রাণবন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে উপস্থাপনার দ্বায়িত্বে ছিলেন জাতীয় কবিতা মঞ্চের আবৃত্তি সম্পাদক তানিয়া পারভীন তামান্না এবং জাতীয় কবিতা মঞ্চের সমন্বয়ক সাংবাদিক কবি লিপি আক্তার। সার্বিক ব্যবস্থাপনা ও সহযোগিতায় ছিলেন নব সাহিত্য প্রকাশনীর প্রধান উপদেষ্টা এবং জাতীয় কবিতা মঞ্চের সহ সভাপতি মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু এবং নব সাহিত্য প্রকাশনীর প্রকাশক ও লেখক ফজলুর রহমান বকুল।

শুরুতেই জাতীয় সংগীত পরিবেশন করে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়, এরপর চলে কবিতা আবৃত্তি পর্ব শেষে অনেকেই সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন। প্রধান অতিথি তার মূল্যবান ভাষণে সাহিত্যের গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস নতুনদের মাঝে তুলে ধরেন। উদ্বোধক তার বক্তব্যে আগতদের অনুপ্রেরণা মূলক দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথিগণ। এরপর বেশ কিছু বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয় এবং সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য কয়েকজনকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয় এবং অন্যান্যদের অনুপ্রেরণা মূলক সম্মাননা তুলে দেন মঞ্চে উপস্থিত গুণীজন।

এসময় বর্তমান সময়ের দুটি বেস্টসেলার গ্রন্থের প্রণেতা এবং আলোচিত কথাসাহিত্যিক বিশিষ্ট লেখক এম মিরাজ হোসেনকে সেরা পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ২০২৩ এবং সেরা কথাসাহিত্যিক সম্মাননা ২০২৩ প্রদান করা হয়। সম্মাননা পেয়ে কথাসাহিত্যিক এম মিরাজ হোসেন তার অনুভূতি ব্যক্ত করে আয়োজকদের সহ সবাইকে বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

অত্র অনুষ্ঠানের সভাপতি- লেখক, গবেষক, সম্পাদক এবং জাতীয় কবিতা মঞ্চের সভাপতি মাহমুদুল হাসান নিজামী প্রধান অতিথি ড. সেলিনা হোসেনকে অবহেলিত কবি সাহিত্যিকদের পাশে দাঁড়ানো আহবান জানান এবং বিভিন্ন দাবিদাওয়া তুলে ধরে এবং সবাইকে ধন্যবাদ দিয় অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap