আজ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

মন্ত্রীর নিরাপত্তারক্ষীর গুলিতে নিহত-১ ,গ্রেপ্তার-১।

ফজলুল হক, কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও গাজীপুর ১ আসনের সাংসদ আ ক ম মোজাম্মেল হকের নিরাপত্তারক্ষীর গুলিতে এক বন্ধু নিহত হয়েছেন। এসময় অপর এক বন্ধু গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এ ঘটনার পর শুক্রবার দুপুরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই নিরাপত্তারক্ষীকে গ্রেপ্তার করেছে।
নিহত হলেন, কালিয়াকৈর থানার সিমান্তবর্তী এলাকা টাঙ্গাইলের মির্জাপুর এলাকার আজগানা গ্রামের আব্দুল সবুরের ছেলে মো. শহিদ (৩১)। গুলিবিদ্ধ হলেন, পাশের ডাবলাপাড়া এলাকার মো. মহিম উদ্দিন (৩২)।


এলাকাবাসী, নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার কুতুবদিয়া এলাকায় গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও গাজীপুর ১ আসনের সাংসদ আ ক ম মোজাম্মেল হকের নিরাপত্তারক্ষী কিশোর কুমার (৩৫) এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। মন্ত্রীর গানম্যান এএসআই কিশোর কুমার কালিয়াকৈর উপজেলার কুতুবদিয়া এলাকার নারায়ন কুমারের ছেলে। কিন্তু কিশোর ও তার বন্ধু শহীদ, মহিম মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। প্রায় তারা কুতুবদিয়া এলাকায় আড্ডা দিতেন এবং নেশা করে বেড়াতেন। গত বৃহস্পতিবার সকালে কিশোরের বন্ধু শহীদ তার উকিল শ্বশুরকে খাবার দিয়ে আসার কথা বলে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। অপর দিকে তাদের বন্ধু মহিমও কালিয়াকৈর বাজারে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। এরপর তারা দুজনে আর বাড়ি ফিরেনি। ওইদিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে কুতুবদিয়া এলাকার লায়ন হাবিবের একটি পতিত জমিতে বসে তারা আড্ডা দেয় এবং নেশা করে। এসময় হঠাৎ গুলির শব্দ শুনতে পান এলাকাবাসী। পরে এলাকাবাসী দেখেন গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই শহীদ মারা যান এবং গুলিবিদ্ধ হয়ে তাদের বন্ধু মহিম আহত অবস্থায় সেখানে পড়ে আছেন। এলাকাবাসীর টের পেলে মন্ত্রীর গানম্যান কিশোর দৌড়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ আহত মহিমকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। এছাড়া ময়নাতদন্তের জন্য নিহত শহিদের লাশ উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। পুলিশ ধারণা করছে, পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে বা নেশা গ্রস্থ হয়ে কোন বিষয় নিয়ে ঝগড়ার জের ধরে কিশোরের কাছে থাকা পিস্তল দিয়ে শহিদ ও মহিমকে গুলি করে। এতে শহিদের বুকের ডান পাশে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং মহিমের পেটের এক পাশে গুলিবিদ্ধ হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে ও পুলিশ বাদী হয়ে শুক্রবার কালিয়াকৈর থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনার পর কালিয়াকৈর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুপুরে সাভারের আশুলিয়া শিমুলিয়া এলাকা থেকে থেকে মন্ত্রীর গানম্যান কিশোরকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় তার কাছ থেকে হত্যাকান্ড কাজে ব্যবহৃত সেই অস্ত্র ও ৬ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত কিশোর কুমার দীর্ঘদিন ধরে গাজীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের নিরাপত্তারক্ষী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিল।
নিহত শহীদের বড় চাচা আব্দুল হক জানান, সে ওইদিন সকালে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। পরে রাতে খবর পাই শহীদকে ওই এলাকা মেরে ফেলে রেখেছে। কেন তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে, সেটা এখনো জানতে পারি নাই। তবে এ হত্যাকান্ডে জড়িত কিশোরের ফাঁসি চাই।
কালিয়াকৈর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর হোসেন মজুমদার বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের গানম্যান গত বৃহস্পতিবার রাতে শহিদ ও মহিম নামের দুই যুবককে গুলি করে। এতে শহিদুল ঘটনাস্থলেই মারা যায় এবং মহিনকে মুমুর্ষ অবস্থায় সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনার পর থেকে নিরাপত্তারক্ষী এএসআই কিশোর পালিয়ে যায়। পরে অভিযান চালিয়ে সেই অস্ত্রসহ তাকে গ্রেপ্তার করে কালিয়াকৈর থানায় নিয়ে আসা হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কেন তাদের গুলি করে হত্যা করা হল তার সঠিক কারণ জানা যাবে।
গাজীপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) আমিনুল ইসলাম জানান, গত বৃহস্পতিবার সারা রাত ও গত শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত চেষ্টা করে মন্ত্রীর নিরাপত্তারক্ষীকে আশুলিয়ার শিমুলিয়া থেকে ৬ রাউন্ড গুলি ও অস্ত্রসহ কিশোরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি মুঠোফোনে জানান, সে তার ব্যক্তিগত কাজে গিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এটা একটা নেক্কার জনক ঘটনা। কিশোরকে গ্রেপ্তার করার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার করা হবে।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap