আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কালিয়াকৈরে পেটে লাথি, অন্তসত্তা স্ত্রী হাসপাতালে।

ফজলুল হক:  কালিয়াকৈর প্রতিনিধি

 

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবীতে চার মাসের অন্তসত্তা স্ত্রীর তলপেটে লাথি মেরে গুরুতর আহত করার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বুধবার দুপুরে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে।
আহত গৃহবধু হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার সাতকুড়া এলাকার মৃত খলিলুর রহমানের মেয়ে রোজিনা আক্তার (১৯)।
এলাকাবাসী ও আহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ৮ মাস পূর্বে কালিয়াকৈর উপজেলার তেতুলিয়াচালা কুড়ারদী এলাকার আঃ সালামের ছেলে মো. ফারুক আহাম্মেদের সঙ্গে রোজিনা আক্তারের বিয়ে হয়। এর আগেও তার ফারুক আরো তিন বিয়ে করেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু রোজিনাকে বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই যৌতুকের জন্য তার স্বামী ফারুক, শ্বশুর আঃ সালাম ও শ্বাশুড়ী নানাভাবে তাকে অত্যাচর ও নির্যাতন করে আসছে। এর জেরে গত শনিবার রাত ১০টার দিকে চার মাসের অন্তসত্তা স্ত্রী রোজিনাকে এলোপাথারী মারধর করে তার স্বামী ফারুক। এসময় ফারুক তার অন্তসত্তা স্ত্রী রোজিনার তলপেটে লাথি মেরে ফেলে দেয়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে ওই রাতে আহত গৃহবধুর ভাই আলহাজ হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। পরে তিনি স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় তাকে কাালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে টাঙ্গাইলের মিজার্পুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে চার দিন ধরে অন্তসত্তা গৃহবধু ওই হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এ ঘটনায় আহত গৃহবধু রোজিনা বাদী হয়ে বুধবার দুপুরে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
আহত গৃহবধুর ভাই আলহাজ হোসেন জানান, আমার বোন জামাই ফারুক একজন খারাপ প্রকৃতির লোক। তিনি একাধিক বিয়ের বিষয়টি গোপন করে আমার বোনকে বিয়ে করে। কিন্তু বিয়ের কিছুদিন পরেই যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময় তার উপর অত্যাচার নিযার্তন করে। চার মাসের অন্তসত্তা বোনের তলপেটে লাথি মেরে গুরুতর আহত করে।
কালিয়াকৈর থানার ডিউটি অফিসার এসআই সোহেল রানা জানান, এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap