আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কালিয়াকৈরে সড়কে বাঁশের বেড়া দিয়ে মৃতদেহ সৎকারে বাধা,জমি দখলের চেষ্টা

ফজলুল হক, কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি  :

 

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সড়কে বাঁশের বেড়া দিয়ে লাশসহ অবরোধ রেখে মৃতদেহ সৎকার কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দেয়া হয়েছে নানা ধরণের হুমকিও। এ ঘটনায় গত সোমবার উপজেলা নিবার্হী কর্মকতার্র কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও রয়েছে শশ্মান ও মন্দিরের জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ। এতে আতঙ্কে রয়েছেন দুই গ্রামের প্রায় ২০০ ঘর হিন্দু ধর্মাম্বলী পরিবার।

 

এলাকাবাসী ও হিন্দু ধর্মাম্বলী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের ঠাকুরপাড়া এলাকায় একটি মহাশশ্মান ও একটি শিবমন্দির রয়েছে। গত ১৯৭৫ সাল থেকে সেখানে ঠাকুরপাড়া ও নাগচালা দুই গ্রামের হিন্দু ধর্মাম্বলীরা মৃতদেহ সৎকার করে আসছে। ইতিমধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে ওই শশ্মানে লাশ পুড়ানোর স্থায়ী চুলা, সৌরবাতি, শিব মন্দির নিমার্ণ করে দেওয়া হয়েছে।

 

কিন্তু গত ২-৩ বছর ধরে স্থানীয় ফুলখান হাজী, আজিবর রহমান, বেনজির আহম্মেদসহ বেশ কয়েকজন তাদের মৃতদেহ সৎকারে বাধা দিয়ে আসছে। এর জের ধরে গত ১৬ জানুয়ারী বেলা ১১টার দিকে জলধর বর্মণ নামে একজনের মৃতদেহ সৎকার কাজের জন্য যাওয়ার পথে বাধা দেওয়া হয়। শুধু বাধা দিয়েই তারা ক্ষান্ত হননি, ফুলখান হাজী ও তার মেয়ে ফাতেমা, স্থানীয় আরবি বেগমসহ বেশ কয়েকজন লোক লাঠি-সোটা নিয়ে লাশসহ হিন্দু ধর্মাম্বলী লোকজনের গতিরোধ করেন।

 

পরে তারা ঠাকুরপাড়া-নাপিতপাড়া ইটসলিং সড়কে বাঁশের বেড়া দিয়ে লাশসহ তাদের অবরোধ করে রাখে। লাশসহ হিন্দু ধর্মাম্বলী লোকজনকে অবরোধে রেখে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। খবর পেয়ে স্থানীয় মাতাব্বররা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। পরে অবরোধকারীরা এই শশ্মানে আর কখনো লাশ পুড়ানো যাবে না সহ নানা ধরণের হুমকি দিয়ে চলে গেলে মৃতদেহ সৎকার কাজ সম্পূর্ণ করা হয়। এ ঘটনায় গত সোমবার দুপুরে ওই শশ্মানের সভাপতি প্রভাত চন্দ্র বর্মন বাদী হয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। মৃতদেহ সৎকার কাজে বাধা ও নানা ধরণের হুমকির মুখে আতঙ্কে রয়েছেন দুই গ্রামের প্রায় ২০০ ঘর হিন্দু ধর্মাম্বলী পরিবার।

 

এছাড়াও তারা ওই শশ্মান ও শিব মন্দিরের জমি দখলের চেষ্টা করছেন বলেও হিন্দু ধর্মাম্বলীর পরিবারের অভিযোগ। তবে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের দাবী, লাশ পুড়ানোর গন্ধে তারা বাড়ি থাকতে পারেন না, অনেক ভয়েও রয়েছি। এ কারণে বাধা দেয়া হয়েছে। এই শশ্মানটি এখান থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।

 

ওই শশ্মানের সভাপতি প্রভাত চন্দ্র বর্মণ, স্থানীয় সুগেন্দ্র বর্মণ, সুনীল চন্দ্র বর্মণ, নিরুপম বর্মণসহ আরো অনেকে বলেন, ১০ সতাংশ জমির উপর নির্মিত তাদের মহাশ্মান ও শিব মন্দির। পূর্বপুরুষ থেকেই এই শশ্মানে তারা মৃতদেহ সৎকার কাজ করে আসছি। শশ্নানের আশপাশে কোনো বাড়ি-ঘরও ছিল না। কিন্তুঅন্যত্র থেকে এসে জমি কিনে তারা শশ্নানের পাশে বাড়ি নিমার্ণ করে গত ২-৩ বছর ধরে আমাদের মৃহদেহ সৎকার কাজে বাধা দিচ্ছে।

 

এর জেরে গত ১৬ জানুয়ারী এক মৃতদেহ সৎকার কাজে যাওয়ার পথে সড়কে বেড়া দিয়ে অবরোধ করে রাখে এবং নানা ধরণের হুমকি দেন। এছাড়াও তারা শশ্মান ও মন্দিরের জমি দখলের চেষ্টা করছে। এখন আমরা আতঙ্কে আছি।

 

কালিয়াকৈর উপজেলা নিবার্হী কর্মকতার্ কাজী হাফিজুল আমীন জানান, রাস্তায় বেড়া দিয়ে লাশসহ হিন্দু ধর্মাম্বলীদের অবরোধ করার বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap