আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ব্যাংক একাউন্টে আসা অতিরিক্ত টাকা ফেরত দিলেন মসজিদের ইমাম

সোলাইমান হোসাইন রুবেল, নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ

 

নেত্রকোণা জেলার খালিয়াজুরী উপজেলায় কৃষি ব্যাংকে তার নিজ একাউন্টে অলৌকিক ভাবে আসা পৌনে ছয় লক্ষ টাকা ফেরত দিলেন আলহাজ্ব মাওলানা হোসাইন আহমেদ।

 

 

ব্যাংক একাউন্টে জমা হওয়া টাকা নিজের না হওয়ায় পৌনে ছয় লাখেরও বেশি টাকা ব্যাংককেই ফেরত দিলেন একজন ইমাম।

ঘটনাটি ঘটেছে খালিয়াজুরী উপজেলা কৃষি ব্যাংক শাখায়।

 

হোসাইন আহমেদ সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার শ্যামারচর বাজার জামে মসজিদে ইমামতি করেন। তিনি সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের মাহমুদপুর গ্রামের বাসিন্দা।

 

কৃষি ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ব্যাংকে হোসাইন আহমেদের নামে ২৮৩৮ নম্বর সঞ্চয়ী হিসাব রয়েছে। এই হিসাব থেকে ২০১৮ সালে সর্বশেষ টাকা উত্তোলন করা হয়েছিল। গতকাল রবিবার গ্রাহক হোসাইন আহমেদ টাকা তুলতে ব্যাংকে এসে হিসাবে কত টাকা আছে জানতে চান। এসময় দায়িত্বরত কর্মকর্তা হিসাব দেখে জানান হোসাইন আহমেদ’কে জানান আপনার একাউন্টে ৫ লাখ ৯১ হাজার ২৬৮ টাকা রয়েছে।

 

এসময় গ্রাহক হোসাইন আহমেদ বলেন, হিসেব মতে তার একাউন্টে ১০ হাজার টাকা থাকার কথা। দশ হাজার টাকার অতিরিক্ত টাকাটা তার নয়।

 

পরে ব্যাংকের কর্মকর্তারা ভাল করে চেক করে দেখেন একাউন্টে ৫ লাখ ৯১ হাজার ২৬৮ টাকাই রয়েছে। এ অবস্থায় গ্রাহক হোসাইন আহমেদ তার একাউন্টে হিসেব অনুযায়ী ১০ হাজার টাকার বেশি টাকা থাকার কথা না। তাই অতিরিক্ত টাকা’টা নিতে অস্বীকার করেন তিনি।

 

পরে হোসাইন আহমেদ তার হিসাব থেকে ৫ লাখ ৮১ হাজার ২৬৮ টাকা উত্তোলন করে পুনরায় ব্যাংকে ফেরত দেন।

 

ব্যাংক কর্মকর্তা আরও জানান, ব্যাংকে ডিজিটাল একাউন্ট করার সময় হয়তো বা সংখ্যায় ভুল করে টাকা এই একাউন্টে চলে এসেছে।

 

আমরা অনেক খোঁজাখুঁজি করে সঠিক মালিক না পেয়ে ব্যাংক নিয়মানুযায়ী ওই টাকাটা অতিরিক্ত হিসাবে রেখে দিয়েছি।

 

হোসাইন আহমদ বলেন, আমার একাউন্টে ১০ হাজার টাকা আছে, বাকি টাকা আমার না, ভুল করে আসা ৫ লাখ ৮১ হাজার ২৬৮ টাকা ব্যাংকে ফেরত দিয়েছি আমি। টাকার সঠিক মালিক খোঁজে তার একাউন্টে হস্তান্তর করার জন্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে আমি বলেছি। যেহেতু টাকাটা আমার না তাই এই টাকার প্রতি আমার হক নেই। এ কারণেই আমার সুযোগ হলেও টাকাটা নেইনি আমি।

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap