স্বাধীনতা

– মুহাম্মদ শামসুল হক

বাবু স্বাধীনতা মানে বঙ্গবন্ধু
ও নিস্পাপ শিশুর বদন
আজ বঙ্গবন্ধু নাই ভাবুক
মনের স্বাধীনতাও নাই।
আমি এখনো পথেপথে
স্বাধীনতাকে খুঁজে বেড়াই,
খুঁজে বেড়াই রাতের
আঁধারে ও প্রখর রোদ্দুরে
– প্রভাতী সূর্যকিরণে
পাখির বাসায় খুঁজেছি তাঁকে,
প্রতিটি দুপুর বেলায়-
বিকেলের গোধূলির সন্ধ্যায়
আমি আমার স্বাধীনতাকে
খুঁজে ফিরি নিত্যদিন।
চারদেয়ালের ভিতর
স্বাধীনতাকে খুঁজে বেড়াই
আমার ভাবনায়- আমার
অস্তিত্বের মাঝেও খুঁজি
লাল কালো নীল রক্তঝরা
কালির লেখনিতে –
আমার কবিতায় আমি
সেই স্বাধীনতাকে খুঁজি!
মাতৃভূমির গর্ভধারিণীর
ছেঁড়া ছিন্নভিন্ন আঁচল –
আদর স্নেহমাখা বোনের
হাসিতে খুঁজে বেড়াই,
আমার বউয়ের কাছে
আমার স্বাধীনতা চেয়েছি!
প্রেমিক ও বন্ধুর
হাতেহাত রাখি স্বাধীনতার তরে
আমার জাতির পিতাকে
যখন হত্যা করা হয় –
বুলেটের আঘাতে একটি
মানচিত্রের রক্তাক্ত ছবি,
রক্তঝরা আগস্টে
ক্ষতবিক্ষত স্বাধীনতা মৃতপ্রায়।
একাত্তরের বিপক্ষ শক্তি
যখন মাথাচাড়া দিয়ে উঠে
সর্বত্র দূর্নীতি ঘুষ হত্যা
ধর্ষন কালোবাজারির গর্জন
মোর স্বাদের স্বাধীনতা
আজ বিলুপ্ত করে হাহাকার!
স্বাধীনতা ভন্ড প্রতারক ও
মিথ্যার শিকলে বন্দী
ঘর্মাক্ত শ্রমিকের কল-
কারখানায় পিষ্ট স্বাধীনতা,
কৃষাণ কৃষাণীর সবুজ
খেতে- রাখাল গরুর মাঠে
গোলাভরা ধান-
গোয়ালঘরে স্বাধীনতা
খুঁজে পাইনি
ঐ অপশাসনে
পরাধীনতা- সুশাসনে স্বাধীনতা।
যে দিন চিনবে বঙ্গবন্ধুর
সোনালী স্বপ্ন ছিলো বেশ-
সে দিন সুখে থাকবে মা
মাটি জনতার বাংলাদেশ।