সিইসির পদত্যাগ দাবি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদার পদত্যাগ দাবি করেছে সরকার বিরোধী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই মুহূর্তে সিইসির পদত্যাগ দাবি করছি। 

মঙ্গলবার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে রাজধানীর গুলশান বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টেয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এ দাবি জানান। 

এর আগে লিখিত বক্তব্যে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, আজ বেলা ১২ টায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয় আমরা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ কমিশনারগণ ও সচিবের সাথে সাক্ষাৎ করি। সেখানে আমাদের প্রার্থী ও সমর্থকদের প্রচারণায় বাধাসহ নানা হামলা মামলার তথ্য উপাত্ত তুলে ধরি। 

তিনি আরও বলেন, জাতীয় নেতৃবৃন্দ নির্বাচনকালীন সময়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার ক্ষমতাপ্রাপ্ত নির্বাচন কমিশনকে এসব ব্যাপারে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। কিন্তু অত্যন্ত ক্ষোভের সাথে আমাদেরকে বলতে হচ্ছে যে, ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দের যুক্তিগ্রাহ্য ও প্রমাণসিদ্ধ বিষয়গুলোকে অগ্রাহ্য করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ক্ষমতাসীন দলের নেতার ভাষায় অভিযোগগুলো কে অস্বীকার করে। সিইসি পক্ষপাতদুষ্ট ও অসৌজন্যমূলক বক্তব্য দিলেও পার্টির নেতৃবৃন্দ শুধু ক্ষুব্ধ নন, বিস্মিত ও হতাশ হন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, নির্বাচন কমিশনের মতো একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান এমন অযৌক্তিক ও দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য দিতে পারে তা অবিশ্বাস্য মনে হয়েছে। এমতাবস্থায় আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে অবিলম্বে এমন একজন মেরূদণ্ডহীন, পক্ষপাতদূষ্ট ব্যক্তির নেতৃত্ব থেকে নির্বাচন কমিশন কে মুক্ত করা অনিবার্য প্রয়োজন বলে মনে করি। 

অবিলম্বে তার পদত্যাগ দাবি করে তিনি বলেন, যথার্থই একজন নির্দলীয় নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে অনতিবিলম্বে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নিয়োগ করার জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি নিকট দাবি জানাচ্ছি।