সাভারে আওয়ামী: নেতা মজিদ হত্যা মামলায় অস্ত্রসহ শুটার মানিক গ্রেফতার, 

খোরশেদ আলম, সাভরঃপ্রতিনিধি
রাজধানী ঢাকার উপকন্ঠ সাভারে পৌর আওয়ামীলীগের সহ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল মজিদকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় সরাসরি জড়িত মানিক নামে এক খুনিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত একটি বিদেশী পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০ টার দিকে সাভারের দক্ষিন বক্তারপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সাভার মডেল থানায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোঃ সাইদুর রহমান। এসময় তিনি বলেন, গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাতে সাভার পৌর আওয়ামীলীগের সহ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল মজিদ নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাসায় ফেরার পথে মিকাইল মেম্বারের বাড়ির কাছে পৌছলে পূর্ব পরিকলম্পনা অনুযায়ী তাদের গতিরোধ করে মিকাইল মেম্বার ও তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা। এসময় পূর্ব  শত্রুতার জের ধরে মিকাইল মেম্বার, মানিক, বাবুসহ কয়েকজন মিলে মজিদের মাথায় গুলি করে তাকে হত্যা করে। এঘটনায় মজিদের দুই সহযোগী পালিয়ে যাওয়ার সময় হত্যাকারীরা  একজনের পায়ে গুলি করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে এবং অন্যজন পালিয়ে যায়।
পরবর্তীতে মজিদের আত্মীয় সজনেরা আহত অবস্থায় গুলিবিদ্ধ মজিদ ও কে উদ্ধার করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল মজিদকে মৃত ঘোষনা করেন। এঘটনায় নিহত মজিদের বাবা আবুল কাশেম বাদী হয়ে মিকাইল মোল্লা, বাবু, মোক্তার হোসেন, মনির-১, মনির-২, রিপন, আনোয়ার,  ও সুজাতসহ অজ্ঞাতনামা ৮/৯ জনের বিরুদ্ধে গত ১৫ সেপ্টেম্বর সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা (নং-৩৯) দায়ের করেন।
সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও বলেন, বুধবার দিবাগত রাতে সাভার মডেল থানা পুলিশ ও ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশ দক্ষিন বক্তারপুর এলাকায় যৌথ অভিযান পরিচালনা করে মজিদ হত্যার ঘটনায় শুটার মানিককে গ্রেফতার করে। পরে তার কাছ থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়।
তিনি আরও বলেন, পূর্বেও এ হত্যাকান্ডের ঘটনার জড়িত থাকার অভিযোগে এজাহার নামীয় একজনসহ তিন জনকে গ্রেফতার করেছি। এর মধ্যে প্রধান আসামী মিকাইল মেম্বারের স্ত্রী আফরোজা বিজ্ঞ আদালতে শিকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সেই তথ্যসহ বিভিন্ন সোর্স থেকে আমরা জানতে পারি যে এলাকায় আধিপত্ত্য বিস্তার ও মানিকের সাথে পূর্ব শত্রুতার  জের ধরে মিকালইল মেম্বার, বাবু, মানিকসহ অন্যান্যরা আব্দুল মজিদকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে।
এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত মজিদ হত্যাকান্ডের ঘটনায় মাদকের কোন সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি। এছাড়া হত্যাকান্ডের ঘটনায় এজাহার নামীয় গ্রেফতারকৃত তিন নম্বর আসামী মোক্তার হোসেনের সম্পৃক্ততার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্তনাধীন রয়েছে। এই মুহুর্তে কার সম্পৃক্ততা কতটুকু তারা বলা সম্ভব হচ্ছেনা। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত এজাহার নামীয় দুইজনসহ মোট চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং প্রধান আসামীসহ বাকীদেরকে গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে দশটার দিকে সাভার পৌর এলাকার কোটবাড়ি মহল্লায় নিজ বাসায় ফেরার পথে খুন হন পৌর আওয়ামীলীগের সহ-প্রচার সম্পাদক আব্দুল মজিদ। এঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয় আরো একজন।