লন্ডনে বিপদের বন্ধু “হার্ট ক্লেইমস ম্যানেজমেন্টে” ৭ বছরে পদার্পণ

মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু

বাংলাদেশী উদ্যোক্তারা দীর্ঘদিন ধরে ব্রিটেনে সফলতার সহিত বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছেন। যার কারণে বাংলাদেশীদের সুনাম সমগ্র বিট্রেন জুড়ে। তারই ধারাবাহিকতায় যুক্তরাজ্যে নাগরিক সুবিধা সহ নিরাপদ সড়ক ও দুর্ঘটনায় কাজ করে যাচ্ছে ব্যবসায়িক ও সেবাধর্মী ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান হার্ট ক্লাইম্স ম্যানেজমেন্ট। কয়দিন আগে এক জাকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। এতে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার দেশী বিদেশী মানুষ অংশগ্রহণ করে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন ও উক্ত প্রতিষ্ঠানের সফলতা কামনা করেন। কেউবা প্রতিষ্ঠানটি পরিদর্শনের জন্য পর্যবেক্ষণ ও ঘুরতে আসেন। দীর্ঘ ৭ বছর যাবৎ ইউরোপের প্রভাবশালী রাষ্ট্র যুক্তরাজ্যের যে কোনো সড়কে বিশেষ করে গোটা লন্ডনে গাড়ী দুর্ঘটনায় এগিয়ে আসছে বিপদের বন্ধু হিসেবে খ্যাত Heart Claims Management একদিকে পরিবেশ সুরক্ষা হচ্ছে আরেক দিকে ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে দুর্ঘটনায় কবলিত ব্যক্তিবর্গ এবং পাশাপাশি বড় ধরণের শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির হাত থেকেও রক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে এই প্রিতিষ্ঠানটি। বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত Heart Claims Management এর প্রতিষ্ঠাতা কর্ণধার ইমরান হোসেন রানা’র সাথে এই বিষয়ে আলাপকালে জানা যায়, দুর্ঘটনায় আহত ড্রাইভার বা যাত্রী সাধারণ অনেক সময় কিংকর্তব্য বিমূড় হয়ে পড়ে। সেই মুহুর্তে আমরা তাদের পাশে দাঁড়িয়ে ভরসা দেই ও ঘটে যাওয়া বিপদ থেকে উদ্ধারে সর্বাত্বক ভাবে সাহায্য করে থাকি। আমাদের রয়েছে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সহ বিশাল কর্মী বাহিনী, যারা ম্যাসেজ বা ফোন পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে ভিকটিমদের উদ্ধারে দ্রুত এগিয়ে যায়। ২৪ ঘন্টাই আমাদের অফিস ও মনিটরিং সেল খোলা থাকে। ডিজিটালাইজ যুগে লন্ডনের কুইন এলিজাবেথ অলিম্পিক পার্কে অবস্থিত আমাদের সদর দফতর থেকে ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইটের মাধ্যকে শুধুমাত্র উক্ত বিষয়ের উপর সমগ্র লন্ডন আমরা নিয়ন্ত্রণ করে থাকি। সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের হাসপাতালে স্থানান্তর সহ গাড়ি প্রতিস্থাপন, গাড়ী ভাড়া, ট্যাক্সি বা মিনিক্যাব ভাড়া, দুর্ঘটনায় গাড়ির স্টোরেজ, গাড়ি মেরামত ও আরো অনেক ধরণের সহযোগিতামূলক কাজ করাই উক্ত প্রতিষ্ঠানের কাজ, বিশেষ করে ড্রাইভিং করার সময় যে কোন দুর্ঘটনাজনিত সমস্যার সমাধান করা হয়, যদি না সে বা তারা পরিবহন ও সড়ক নিরাপত্তায় রাষ্ট্রীয় আইনগত কোনো অপরাধ করে না থাকে, তাহলে আমরা থার্ড পার্টি থেকে আইনীভাবে তার সমস্ত ক্ষতিগুলি পুনরুদ্ধার করতে সহায়তা করে থাকি। এছাড়াও ইন্সুরেন্সের নিশ্চয়তায় আমরা সদা তৎপর। আমরা মনে করি একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। তবে এটাও মনে রাখতে হবে দুর্ঘটনা হঠাৎ করেই হয়, বলে কয়ে আসে না। তারপরও সতর্ক হয়ে রাস্তা পারাপার বা গাড়ী চালনা করা সবারই উচিত। ভবিষতে আমরা সমগ্র যুক্তরাজ্যে কাজ করে যাবো। আশা করি নিকট ভবিষতে দুর্ঘটনায় ক্ষয় ক্ষতি কমিয়ে আনতে আমাদের প্রতিষ্ঠান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাবে এবং পথচারী, যাত্রী ও চালকদের সচেতনতা মূলক প্রোগ্রামের আওতায় এনে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে যেন দুর্ঘটনা ঘটলে তারা প্রাথমিক করণীয় বিষয়টি তারা নিজেরাই নিশ্চিত করতে পারে। ইতিমধ্যেই আমরা বিভিন্ন প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি, স্থানীয় ও প্রবাসী জনগণের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। লন্ডনের সরকারী, আধাসরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, হাসপাতাল ও ইনসিওরেন্স কোম্পানীগুলো আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাচ্ছে তাই আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। মিস্টার রানা আরো বলেন ফয়সাল ও ফাহাদ সহ আরো যারা এই প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িতও আছেন তারা আমার এই স্বপ্নের প্রতিষ্ঠানকে করেছে আরো গতিশীল। উক্ত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সাথে আলাপকালে বুঝতে পারলাম, তারা শুধু বাংলাদেশের জন্যই গর্বের বিষয় নয় আজ তারা প্রমান করেছে বাঙ্গালী জয় করতে পারে সাড়া বিশ্ব। তাই অনেককে বলতে শুনা যায়, লন্ডনে বিপদের বন্ধু Heart Claims Management