নদী দখল ও জল দূষণ : হুমকির মুখে বাংলাদেশ (পর্ব-২)

লেখক ও কবি: মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু –

এক সময় আমরা জেনেছি, নদীর যৌবন অবস্থা সম্পর্কে। এ অবস্থায় নদীর প্রধান কাজ হলো ক্ষয় এবং বহন। সাধারণত পার্বত্য অবস্থাটিই নদীর যৌবনকাল। এ সময় নদী বড় বড় পাথর বহন করে নিয়ে আসে। এসব পাথরের ঘর্ষনে নদীর তলদেশ ক্ষয় পেয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। পার্বত্য অঞ্চলে নদীর ক্ষয়ক্রিয়ার ফলে গিরিখাত, ক্যানিয়ন এবং জলপ্রপাতের সৃষ্টিও হয়েছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় এখন এই কথাগুলো শুধু বইপুস্তকেই পাওয়া যাবে।

আরেকটি হলো নদীর পরিপক্ক কাল, এ অবস্থায় নদী একটু স্তিমিত হয়। ফলে নদীর বেগ ও পলিমাটির ঢল বয়ে নেওয়ার ক্ষমতাও কমে যায়। সাধারণত নদী মধ্যস্থানে বা উপত্যকায় প্রবেশ করলে এই পরিপক্ক বা প্রৌঢ় অবস্থা বিরাজ করে। এই অবস্থায় গিরিখাত, খরস্রোত, জলপ্রপাত প্রভৃতি আর দেখা যায় না। পাহাড়গুলো এবং তার মধ্যবর্তী জলবিভাজিকার উচ্চতাও আগের চেয়ে কমে যায়।

শেষে আইবুড়ো নদীর বৃদ্ধাকালে ক্ষয় করার ক্ষমতা একেবারেই কমে যায়। তবে তীরবর্তী ভাঙার কাজ অল্পস্বল্প চলে। সাধারণত সমতল ভূমিতে নদীর এই অবস্থা হয়। এতে কোথাও কোথাও উঁচু ভূমি থাকতে পারে। এ সময় নদীর গতিমাত্রা এত কমে যায় যে, সামান্য বাধা পেলেই নদী তার গতিপথ পরিবর্তন করে। নদী এই অংশে খুব এঁকেবেঁকে চলে। পথে পথে অশ্বক্ষুরাকৃতি হ্রদ সৃষ্টি করে। এ অবস্থায় নদী বর্ষাকালে প্রায়ই দু’কূলে বন্যার সৃষ্টি করে। নদীর পানি চারদিকে ধাবিত হয়ে বালি ও পলি দুই তীরে ছড়িয়ে পড়ে। নদীর বুকেও চর জাগে। মাঝে মাঝে ভূকম্পনের ফলে নদী আবার যৌবন পেতে পারে। এ ছাড়া অন্যান্য কারনে ও প্রয়োজনীর ব্যবস্থা নিলে নদীর তীব্রতা ও গতি বাড়ার সম্ভাবনা থাকে।

আপনারা জানেন কি, ভূ-আন্দোলন যদি ব্যাপক আকার ধারণ করে, তখন তা গিরিজনিতে পর্যবসিত হয়। এর ফলে নতুন নতুন পাহাড় পর্বতের সৃষ্টি হয়। পৃথিবীতে এমন কিছুসংখ্যক বিরল নদী আছে, যারা উত্থিত পর্বতের শক্তিকে পর্যুদস্ত করে তাদের ক্ষয়কার্য অব্যাহত রেখেছে এবং পর্বতরাজির উত্থান সংঘটিত হবার পরও তাদের অস্তিত্ত বজায় রাখতে সক্ষম। ঐ সমস্ত নদীকে বলা হয় প্রাকভূমিরূপ নদী। উদাহরণস্বরূপ কলরেডো, সিন্ধু ও ব্রহ্মপুত্রের নাম বলা যেতে পারে। কলরেডো রকি পর্বতের এবং সিন্ধু ও ব্রহ্মপুত্র নদ হিমালয় পর্বতের উজানের অনেক আগে থেকেই সেখানে প্রবাহমান ছিল। আজ সেই ব্রম্মার পুত্রের নদীর কি করুন অবস্থা চোঁখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন।

প্রধান নদী সাধারণত পাহাড় হতে সৃষ্ট ঝর্ণা, হিমবাহ থেকে সৃষ্টি হয়, যেমন পদ্মা নদীর মাঝির সেই পদ্মা গঙ্গোত্রী হিমবাহ হতে উৎপন্ন হয়েছে। শাখানদী অন্য কোন নদী হতে উৎপন্ন হয়। যেমন বুড়িগঙ্গা ধলেশ্বরীর শাখা নদী। কিন্তু বুড়িগঙ্গা কে চোঁখে দেখা গেলেও ধলেশ্বরীকে খুঁজে পাওয়া দুস্কর। ধলেশ্বরীর আরেকটি শাখা নদী বংশীকে কিছুটা খুঁজে পাওয়া যায় তবে সেই বংশী ও এই বংশীর মাঝে বিরাট ফারাক। বংশী নদীতে এখন শুধুই দুর্গন্ধ। আমরা জানি, উপনদী সাধারণত অন্য নদীতে গিয়ে মেশে এবং প্রবাহ দান করে, যেমন আত্রাই নদী। কোন প্রধান নদী অন্য নদীর উপনদীও হতে পারে। আবার পুরুষ ও স্ত্রীবাচক শব্দের ভিত্তিতে এই জলস্রোতকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। যে সকল জলস্রোতের নাম স্ত্রীবাচক তাদের নদী বলা হয়। এদের নাম দীর্ঘস্বর কারান্ত হয়। যেমনঃ মেঘনা, যমুনা, কর্ণফুলী, কুশিয়ারা ইত্যাদি। যে সকল জলস্রোতের নাম পুরুষবাচক তাদের বলা হয় নদ। এদের নাম হ্রস্বস্বর কারান্ত হয়। যেমনঃ কপোতাক্ষ, ব্রহ্মপুত্র, নীল নদ ইত্যাদি। তবে এই নিয়ম সে সকল নদীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, যাদের নাম পৌরাণিক। ব্রম্মপুত্র তাদের ভিতর অন্যতম।

দখলদারদের কবলে পড়ে নদীর ভৌগোলিক জ্ঞান ও গাণিতিক সূত্র হারিয়ে যাচ্ছে। নদীর উৎসমূল সাধারণত একটি সু-উচ্চ পার্বত্য অঞ্চল, যেখানে বরফগলা পানি ও বৃষ্টির পানি একটি ঢাল বেয়ে মাধ্যাকর্ষণ জনিত প্রবল স্রোতস্বিনী সৃষ্টি করে। একাধিক ক্ষুদ্র জলধারার পর্যায়ক্রমিক সমন্বিত প্রক্রিয়াই পর্বতের গা ক্ষয় করে নদীনালার সৃষ্টি করে।

পাতপ্রবাহ-মিহিনালি-শিরানালি-গুহানালি-নদী উপত্যকা। কার্যত নদী উৎসমূলে ক্ষয়কার্য কয়েকটি নিয়ামক দ্বারা প্রবাহিত, বলা হয়ে থাকে হাজার নদীর দেশ বাংলাদেশ। বর্তমানে হাজার থেকে শূন্য বাদ দিলে যা থাকে তাই, বাকিগুলোর অস্তিত্ব নাই আর থাকলেও সেগুলোকে এখন আর নদী বলা যায় না। বাংলাদেশে ঠিক কত নদী আছে তার সঠিক পরিসংখ্যান বাংলাদেশ নদী গবেষণা ইনস্টিটিউটের কাছে নেই। কোন নদী কোথা থেকে উৎপত্তি হয়ে কোথায় শেষ হয়েছে কিংবা একটি নদী আরেকটি নদীকে কোথায় অতিক্রম করেছে এসব যাবতীয় তথ্য-প্রমাণ এখনো মানুষের অজানা। অনেক গবেষকদের মতে, বাংলাদেশে উপনদী ও শাখানদীর মোট সংখ্যা ২২৫। তবে নদী, উপনদী ও শাখানদীর সর্বমোট সংখ্যা নিয়ে গবেষকদের মধ্যে যথেষ্ট মতভেদ আছে। একটি নদী থেকে অসংখ্য নদী সৃষ্টি হয়েছে। আবার কোন কোন নদী থেকে খাল বা ছড়া উৎপন্ন হয়েছে। এগুলোও প্রাকৃতিক নদীর অন্তর্ভুক্ত। যেমন- কর্ণফুলী নদী মোহনা থেকে কাপ্তাই বাঁধ পর্যন্ত এই নদীতে অন্তত ২৪-২৫টি ছোটবড় উপনদী এসে মিশেছে। এই হিসাব থেকে অনুমান করলে বাংলাদেশকে হাজার নদীর দেশ বলা যেতে পারে। যশোর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালীতে রয়েছে অজস্র নদী। এসব নদীর নামকরণও ঠিকমত হয়নি। আবার কোন কোন নদীর বিভিন্ন অংশের বিভিন্ন নাম। বাংলাদেশের প্রধান নদী পাঁচটি- পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, পশুর ও কর্ণফুলী। এরপর আসে তিস্তা, গড়াই, মধুমতী, রুপসা, আড়িয়াল খাঁ, কুমার, আত্রাই, কীর্তনখোলা, বিষখালী ইত্যাদি নদ-নদীর নাম। এসব নদীর মধ্যে কোনটা বড় কোনটা ছোট বলা কঠিন। সরকারকে তাই এই বিষয়গুলোর প্রতি সুদৃষ্টি দেয়া উচিত বলে মনে করি।

কারণ জীবন ও জীবিকায় নদীর ভূমিকা অপরিসীম। নদীকে ঘিরেই বিশ্বের প্রতিটি শহর, বন্দর, গঞ্জ, বাজার প্রভৃতি গড়ে উঠেছে। তাইতো নৌকা ও নদী – একে-অপরের পরিপূরক। নদীতে মূলতঃ নৌকা চললেও লঞ্চ, স্টিমার, স্পীডবোট, ট্রলার ইত্যাদির দেখা পাওয়া যায় কিন্তু যদি নদী মরে যায় বা দখল হয়ে সংকুচিত হলে নৌচলাচল ব্যাঘাত ঘটে। পাশাপাশি নদীমাতৃক ও কৃষিপ্রধান দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসে এবং প্রাকৃতিক ভারসাম্য হারিয়ে হুমকির মুখে পড়ে জীবন ও জীবিকা। শুধুই কি তাই বাংলা সাহিত্যে নদী গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে ছিল ও আছে। তন্মধ্যে মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়-এর “পদ্মা নদীর মাঝি” অন্যতম। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে সুজন-সখী’র গান হিসেবে “সব সখীরে পাড় করিতে নেব আনা আনা, তোমার বেলা নেব সখী” – প্রেমের গানটি তৎকালীন সময়ে সকলের মুখে মুখে ছিল। সঙ্গীত জগতে ‘নদী’ গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র হিসেবে ঠাঁই পেয়েছে। মান্নাদে’র এ নদী এমন নদী; জগজিৎ সিং এর ‘নদীতে তুফান এলে কুল ভেঙ্গে যায়, ’পথিক নবীর “আমার একটা নদী ছিল”। কিংবা আরতী মুখোপাধ্যায়ের ‘নদীর যেমন ঝরনা আছে, ঝরনারও নদী আছে’ ইত্যাদি অমর সঙ্গীত হিসেবে টিকে থাকবে আজীবন। এছাড়াও, মোহনায় এসে নদী পিছনের পথটাকি ভুলতে পারে – গানটি বেশ জনপ্রিয়। আরো ছিলো আমার রচিত নই-নদী কাব্যগ্রন্থের বহু কবিতা।

কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে দখলে-দূষণে বিপন্ন বাংলাদেশের নদনদী। তাই কবিতা ও সাহিত্য জগতের জন্যে ইহা এক অশনি সংকেত। এরই মাঝে নদীমাতৃক বাংলাদেশে নদনদীর ভবিষ্যৎ নিয়ে তৈরি হয়েছে গভীর শঙ্কা। একদিকে উজানে সীমান্তের ওপারে বাঁধ তৈরি করে এক তরফা পানি সরিয়ে নেয়ার ফলে বাংলাদেশের নদীগুলোতে দেখা দিয়েছে জল সঙ্কট। অন্যদিকে, দেশের মধ্যেই অতিরিক্ত পলি জমে নদীগুলো ভরাট হয়ে যাচ্ছে। নানা ধরনের শিল্প বর্জ্যের দূষণে নদীর প্রাণ বৈচিত্র্য এখন হুমকির মুখে। পাশাপাশি নদীর পাড় দখল করে কিংবা নদীর বুকেই চলছে অবৈধ নির্মাণ। ফলে বহু নদী বাংলাদেশের মানচিত্র থেকে হয়তো ইতোমধ্যেই হারিয়ে গেছে, নয়তো কোন রকমে ধুঁকছে ও বেঁচে আছে। এক সময়ের চলন বিলের মাঝখান দিয়ে বয়ে যাওয়া বড়াল নদীকে দেখলে বিশ্বাসই হবে না যে বর্তমানে এটি একটি নদী। এর বুকের ঠিক মাঝ বরাবর তৈরি করা হয়েছে একটি ক্রস-ড্যাম বা আড়ি-বাঁধ। এটি একই সঙ্গে সড়ক হিসেবেও ব্যবহৃত হচ্ছে। এই বাঁধ নদীটিকে মাঝ বরাবর কেটে দু’টুকরো করে ফেলেছে। বড়ালে পানি আছে। তবে নদীতে যেমন পানি প্রবহমান থাকে। বড়ালে তেমনটি নয়। নদীর জল স্থবির। কচুরিপানায় ঢাকা। বেশ কয়েকটি বাঁধ এবং স্লুইস গেটের কারণে নদীটি খন্ড খন্ড হয়েছে। বড়াল দিয়ে এক সময় হাজার-বারশো মন মালবাহী নৌকা চলাচল করতো। চাটমোহর ছিল ব্যস্ত এক বন্দর। চলন বিলের কৃষিপণ্য বড়াল বেয়ে চালান হয়ে যেত দূর-দূরান্তে পর্যন্ত।

কিন্তু এখন এই নদীর পানি পশু-পাখিও পান করে না। বড়ালের উৎপত্তি পদ্মা নদী থেকে রাজশাহীর চারঘাট এলাকায়। ১৯৮৫ সালে চারঘাটে বন্যা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্য নিয়ে নদীর মুখে নির্মাণ করা হয় একটি স্লুইস গেট। কিন্তু এটি নির্মাণের সে সময় শুধুমাত্র স্থানীয় স্বার্থের কথাই বিবেচনা করা হয়েছিল। ২২০-কিলোমিটার দীর্ঘ বড়ালের ভাটিতে যে লক্ষ লক্ষ মানুষ বসবাস করছিলেন, যারা নির্ভর করে ছিলেন এই নদীর ওপর, তাদের কথা সেই সময়কার পরিকল্পনাকারীরা মোটেও ভাবেনি। যে নদীর কুলে এক সময় ছিল বেশ ক’টি ব্যস্ত নদী বন্দর। ৮০ দশকের শেষ নাগাদ দেখা গেল সেই নদীতে আর জল আসে না। আপনি ভাবছেন বড়ালের মত দুর্ভাগ্য নিশ্চয় অন্য নদীর হয়নি। ব্যাপারটি মোটেও তা না, সরকারি হিসেব মতে, দেশে প্রায় ৪০০ এর অধিক নদী থাকলেও এদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক নদীতে শুকনো মৌসুমে কোন জল থাকে না। রিটিশ শাসনামলে জেমস রেনেল এই অঞ্চলের নদনদীর ওপর যে মানচিত্র তৈরি করেছিলেন, তা থেকেও বোঝা যায় গত ২০০ বছরে বাংলাদেশের নদনদীতে কতটা পরিবর্তন ঘটেছে। দেশে নদীর মোট সংখ্যা কত তা নিয়েও রয়েছে বিভ্রান্তি। নবগঠিত জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ. আতাহারুল ইসলাম নদনদীর প্রকৃত অবস্থা সম্পর্কে তথ্য ঘাটতির কথা স্বীকার করলেন। তিনি জানালেন, প্রধান নদীর সংখ্যা মোট ৫৭টা। তিনটা নদী বাংলাদেশে ঢুকেছে মিয়ানমার থেকে। বাকি ৫৪টা এসেছে ভারত থেকে। “কিন্তু বাংলাদেশের ভূখণ্ডের মধ্যেই নদীর সংখ্যা নিয়ে সরকারের একেক বিভাগের কাছে একেক ধরনের তথ্য রয়েছে, “পরিসংখ্যান ব্যুরোর কাছে এক ধরনের হিসেব, আবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে আরেক হিসেব