আজ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

চল্লিশে ধীরে হাঁটা যেসব রোগের লক্ষণ

চল্লিশ বছর বয়সে আপনি কত দ্রুত হাঁটতে পারেন তা বলে দেবে আপনার মগজ। এ ছাড়া শরীরের বয়স কত দ্রুত বাড়ছে তাও জানা যাবে। এমন খবর জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।
গবেষণায় দেখা গেছে, যারা ধীরে হাঁটে তাদের মস্তিষ্ক ও শরীরের বয়স বেশি বেড়ে গেছে। খবর বিবিসি বাংলার।
হাঁটার গতির ওপর সহজ এক পরীক্ষা চালিয়েছেন গবেষকরা। কত দ্রুত বয়স বাড়ছে সেটি পরিমাপ করতে সক্ষম হয়েছেন এ গবেষণায়।
যারা ধীরে হাঁটেন তারা যে শুধু তাড়াতাড়ি বুড়িয়ে যান তাই নয়, তাদের মুখও দেখায় বুড়োটে এবং তাদের মস্তিষ্কের আকৃতিও ছোট হয়ে যায়।
আন্তর্জাতিক গবেষকদের দলটি বলেছে, তাদের এই গবেষণার ফল দারুণ চমকপ্রদ।কারণ হাঁটার গতিপ্রকৃতি থেকে মাংসপেশীর শক্তি, ফুসফুসের সুস্থতা, মেরুদণ্ডের শক্তি এবং দৃষ্টিশক্তির উজ্জ্বলতা বোঝা যায়।
বৃদ্ধ বয়সে হাঁটার গতি ধীর হয়ে যাওয়ার সঙ্গে স্মৃতিভ্রমের যোগাযোগও করেছেন কোনো কোনো বিজ্ঞানী।
এ গবেষণা চালানো হয়েছে নিউজিল্যাণ্ডে এক হাজার লোকের ওপর। যাদের জন্ম ১৯৭০-এর দশকে। ৪৫ বছর বয়স পর্যন্ত তাদের সবরকম তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়েছে। তাদের হাঁটার গতি-প্রকৃতির ওপর পরীক্ষা চালানো হয় আরও আগে থেকে।
এ গবেষণায় যারা অংশ নিয়েছিলেন, তাদের বিভিন্ন শারীরিক পরীক্ষা করা হতো, বিভিন্ন সময়ে তাদের মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতার পরীক্ষা নেয়া হতো এবং মস্তিষ্কের বিভিন্ন স্ক্যান করা হতো। তাদের শিশু বয়স থেকে প্রতি দুবছর অন্তর বুদ্ধিবৃত্তি ও চিন্তাশক্তির সক্ষমতা পরীক্ষা করে দেখা হতো।
এ গবেষণায় দেখা গেছে, বৃদ্ধ বয়স হওয়ার আগেই ধীরগতিতে হাঁটা সমস্যার প্রতি একটা ইঙ্গিত। ণ্ডনের কিংস কলেজ এবং আমেরিকার ডিউক ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ও এ গবেষণাপত্রের প্রধান লেখক টেরি মফিট।
তিনি বলছেন, এমনকি ৪৫ বছর বয়সী যারা ধীরে হাঁটেন তাদের মধ্যেও হাঁটার গতিতে বিস্তর ফারাক দেখা যায়।
তবে তার কথায় মোদ্দা বিষয়টা হলো, যাদের হাঁটার গতি যত ধীর হয়ে যায়, তাদের বয়স বাড়ার প্রক্রিয়াও তত দ্রুততা পায়। তাদের ফুসফুসের ক্ষমতা, দাঁতের অবস্থা এবং রোগ-প্রতিরোধ সক্ষমতা যারা দ্রুত হাঁটেন তাদের থেকে খারাপ হয়ে যায়।
গবেষকরা আরও দেখেছেন, মাত্র তিন বছর বয়সে মানুষের বুদ্ধি, ভাষা ও স্নায়বিক দক্ষতা পরীক্ষা করে তারা নির্ধারণ করতে পারেন ৪৫ বছর বয়সে তাদের হাঁটার গতি কী হবে।
তারা বলছেন, চল্লিশের বেশি বয়সে যাদের হাঁটার গতি ধীর হয়ে যায়, শিশুকালে তাদের আইকিউ (বুদ্ধিমত্তার মাপকাঠি) যারা ৪৫ বছরেও দ্রুত হাঁটেন তাদের থেকে ১২ পয়েন্ট কম ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap