গয়েশপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্র মানুষ সুদ ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি

সোহেল রানা, পাবনা প্রতিনিধিঃ

পাবনা সদর উপজেলা গয়েশপুর ইউনিয়নের শালাইপুর ও জালালপুর গ্রামের হতদরিদ্র মানুষেরা কিছু অর্থলোভী সুদব্যবসায়ী ও মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে দীর্ঘদিন যাবত জিম্মি হয়ে আছে।

জানা যায, শালাইপুর গ্রামের শামসুলের ছেলে সুটকে রহিম ওরফে সুদে রহিম দীর্ঘদিন যাবত শালাইপুর গ্রামের অনেক মানুষের দরিদ্রতার দূর্বলতার সুযোগ নিয়ে, তাদের জমি-জমা, গরু-ছাগল নিয়ে নিয়েছে।

তার একটাই কারণ হতদরিদ্র মানুষ অভাবের তারনায় সুদের রহিমসহ ফজর, শুকুর, পেনু ও সাকাত এর কাছে কোন না কোন সময় সামান্য কিছু টাকা ধার নেয় আর সেই ধারের টাকা সুদ নিয়মিত না দিতে পারায় টাকার সুদের সুদ হয়ে বড় অংকের আর এই সুযোগে সুদে রহিম অসহায় মানুষদের সম্পত্তি নিজের দখলে নিয়ে নেয়।

নাম না বলা কয়েকজন গ্রামবাসী বলেন সুদে রহিম মানুষের কাছ থেকে সাদা ষ্টাম্পে স্বাক্ষর অথবা টিপ সই নেয়।

এছাড়াও অনেকের কাছ থেকে ব্যাংকের ব্লাইঙ্ক চেক সই করে নেয়। জাযা যায় সুদে রহিম দীর্ঘদিন যাবত এলাকায় মাদক, পরক্রিয়াসহ নানা অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকে।

এখন পর্যন্ত আপন দুই বোনকে স্ত্রী হিসেবে রেখেছে। সুধু তাই নয় সুদের টাকার সুদ এতটাই বৃদ্ধি যে এক হাজার টাকা নিলে তার বিনিময়ে সুদে রহিম কে দিতে ১৫০ টাকা।

বছর তিনেক আগেও সুদে রহিমের কিছুই ছিল না। এখন তার তিন তলা বাড়ি সহ অনেক সম্পত্তির মালিক।

সুদের রহিম তার পূর্বের পরিচয় জানা যায়, এক সময় ডাকাতি ও হত্যার সাথে জিড়ত ছিল।

জানা যায় বিভিন্ন অপকর্মেরর সাথে জড়িত। এদিকে জালালপুরের সাকাত ও তার কিছু সহযোগীরা দীর্ঘদিন যাবত সুদের রহিমে মতই এলাকায় নানা রকম অপকর্ম ও হত দরিদ্র মানুষর সম্পত্তি জবল দখল করে নিচ্ছে বলে জানা যায়।

শালাইপুর গ্রামের শামসুল খলিফার ছেলে একজন অত্র এলাকার একজন মাদক স¤্রাট। কিছুদিন আগেও তার কিছুই ছিল না রাতারাতি বাড়ি ঘর হয়েছে। মনে হচ্ছে যেন আঙুল ফুলে কলাগাছ।

বর্তমানে এলাকাবাসীরা মাদক ব্যবসায়ী ও সুদে কারবারিদের কাছ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।