আশুলিয়ায় জমজমাট হতে শুরু করেছে, সবচেয়ে পুরনো ও ঐতিহ্যবাহী গরুর হাটগুলো।

বিশেষ প্রতিনিধি:

আর কয়েকদিন পরই মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। ঈদুল আজহা’য় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ‌’পশু কোরবানি’। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ঢাকার শিল্পাঞ্চল সাভার ও আশুলিয়ায় জমতে শুরু করেছে পশুর হাটগুলো।

সাভার ও আশুলিয়ার বিভিন্ন জায়গাতে, নির্দিষ্ট পশুর হাটে এরই মধ্যে প্রায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে, হাট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন হাট গুড়ে দেখা গেছে, সাভার ও আশুলিয়ার অধিকাংশ পশুর হাটে, ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সার্বিক নিরাপত্তা দিতে, এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এরইমধ্যে বেশ কিছু পশুর হাটে গরু, মহিষ, ছাগল, বেড়াসহ অন্যান্য পশু রাখার নির্ধারিত স্থান বাঁশ দিয়ে প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়া বর্ষা মৌসুম থাকায় বৃষ্টিতে যাতে কোন সমস্যা না হয় সেজন্য বেশিরভাগ হাটেই সামিয়ানা টানানো হয়েছে। প্রতিটি হাটে পর্যাপ্ত লাইটিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

আর দু’একদিন পর থেকেই পুরোপুরি জমে উঠবে কোরবানির পশুর হাট এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন হাঁট ইজারাদার ও ক্রেতা-বিক্রেতারা।

এ বিষয়ে আশুলিয়ার সবচেয়ে বড় ঐতিহ্যবাহী গরুর হাট বঘাবাড়ী-হাটের ইজারাদার, মুনসুর মাদবর জানান, পঞ্চাশ বছর পুরোনো এই গরুর হাটটিকে, বর্তমান সাভার উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান, সাহাদাৎ খানের সহযোগীতায় সুষ্ঠভাবে পরিচালোনা করে আসছি।

এ বছরে গরু আসা এখনো সম্পুর্ন হয়নি , তবে আগামী দুই এক দিনের মধ্যে সকল গরু ব্যাবসায়ীরা তাদের গরু নিয়ে চলে আসবে বলে ধারনা করছি। এছাড়া গরু ব্যাবসায়ীদের ও ক্রেতাদের জন্য সকলধরনের সুযোগসুবিধার ব্যাবস্থা করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। তিনি আরো জানান আমাদের গরুর হাটটি ঈদের তিন চার দিন আগে থেকে পুরোপুরি জমে উঠবে।

আশুলিয়া থানা যুবলীগের সদস্য, নাজমুল আলম মিরন জানান, আশুলিয়ার মধ্যে বগাবাড়ি গরুর হাট একটি ঐতিহ্যবাহী ও সবচেয়ে বড় হাট। আমাদের এই গরুর হাটকে আমরা প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সকল ধরনের বিশৃঙ্খলা ও সকল ধরনের অনিয়ম মুক্ত করতে, সাভার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান , জনাব শাহাদাত হোসেন খানের নেতৃত্বে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।