অতঃপর বদু কাকার ১৫০-১৪৭=৩

নির্বাচনী ডেক্স:  সাবেক প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী ঐক্যফ্রন্ট গঠনের সময় বিএনপির কাছে ১৫০ আসন দাবী করেছিলেন। সারাদেশে কুলা মার্কার দল বিকল্পধারার এতো বেশি যোগ্য প্রার্থী ছিল যে বিএনপির মতো দলের কাছে দেড়শ আসন দাবি করেন। প্রত্যাশিত আসন না পাওয়ায় ড. কামাল হোসেনের ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেননি। অতপর নিজস্ব চেতনা ও আদর্শিক রাজনীতি থেকে ১৮০ ডিগ্রী ঘুরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে মহাজোটে যোগ দেন। কিন্তু সেখানে যুক্তফ্রন্টের শরীক কোনো দলকেই মনোনয়ন দেয়নি মহাজোট। শুধু বিকল্পধারাকে তিনটি আসন দেয়া হয়। ১৫০ থেকে ধপাস করে ৩ আসনে নেমে আসার ঘটনা এখন রাজনীতিতে আলোচনার বিষয় হয়ে গেছে। আসন দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০ দল থেকে ২টি দলকে যুক্তফ্রন্টে নিয়ে আসেন। এ ছাড়াও আরো কয়েকটি ক্ষুদ্র দল ও প্রভাবশালী কয়েকজন সাবেক প্রতিমন্ত্রী সাবেক এমপিকে দলে যোগদান করান। কিন্তু সকলেই হতাশ।

দেড়শ আসনের দাবিতে বিএনপির ঐক্যফ্রন্ট থেকে ছিটকে গিয়ে রাজনীতিতে ‘চমক’ দেখিয়ে মহাজোটে যান বি চৌধুরী। আওয়ামী লীগের জোট সঙ্গী হয়ে নির্বাচন করা যুক্তফ্রন্টকে মাত্র ৩টি আসনে ছাড় দিয়েছে আওয়ামী লীগ। বিএনপি ছেড়ে বিকল্পধারায় আসা সাবেক কূটনীতিক শমসের মবিন চৌধুরী সিলেটে, সাবেক প্রতিমন্ত্রী গোলাম সরোয়ার মিলন মানিকগঞ্জে এবং সাবেক প্রতিমন্ত্রী আলাউদ্দিন আল আজাদকে প্রার্থী করার লোভ দেখিয়ে বিকল্পধারায় যোগদান করালেও জোটের পক্ষ থেকে তাদের কোনো আসন দেয়া হয়নি। বিকল্পধারার মহাসচিবের হাতে ৩ জনের চূড়ান্ত মনোনয়নপত্র তুলে দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। অথচ আসন্ন ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে বিকল্পধারার ৫১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছে। বিকল্পধারা আওয়ামী লীগের কাছে ২৫টি আসনে দাবি করেছিল। কিন্তু বি চৌধুরীর এই দাবিকে পাত্তাই দেয়নি আওয়ামী লীগ।

মহাজোট থেকে বিকল্পধারাকে যে আসন দেয়া হয়েছে সেগুলো হলো- লক্ষীপুর-৪ মেজর (অব.) এম এ মান্নান, মুন্সীগঞ্জ-১ মাহী বি চৌধুরী এবং মৌলভীবাজার-২ এমএম শাহীন। ঐক্যফ্রন্ট থেকে দেড়শ আসনের দাবিদার বি চৌধুরী এখন মহাজোটে ৩ আসনেই খুশি! সুত্র জানায়, ঐক্যফন্টের কাছে দেড়শ আসন দাবি করলেও বি চৌধুরী গণভবনে সংলাপ এবং পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে একমাত্র ছেলে মাহী বি চৌধুরী যাতে এমপি হয়ে আসনে পারেন সে অনুরোধ জানিয়েছেন। একেই বলে ক্ষমতার রাজনীতি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে আসন দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০ দলীয় জোট থেকে যে দুটি দল এবং প্রভাবশালী তিন জনকে যুক্তফ্রন্টে ভিড়িয়ে মিডিয়ায় খবরের শিরোনাম হয়েছেন; তারা এখন বি চৌধুরীর বিরুদ্ধে নানান বক্তব্য দিয়ে বেড়াচ্ছেন।